||BanglaClub||.your place to be

tHE oNE & ONLY

মৃতুঞ্জয়ী এই শিশুটিকে কোলে তুলে নিতেই হবে আমাদের

লিখেছেন: আরিফ জেবতিক

গভীর অন্ধকার রাতের এক নির্জন প্রান্তর । সেখানে এক নদীর পারে অন্ধকারে ফেলে রেখে গেছে এক তরুণী গৃহবধুর লাশ । আর তাঁর পাশে তার ছোট্ট সন্তান । সারারাত মৃতা মায়ের দেহে হামাগুড়ি দেয় , দুধ খেতে চায় , কাঁদে … আর অজান্তেই অপেক্ষা করে নিশ্চিত মৃত্যুর ।

তবু এই শিশুটি অন্ধকার রাতের হিম মৃত্যুর হাতছানিকে অস্বীকার করে বেঁচে গেছে । কিন্তু শিশুটি অসুস্থ , নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে প্রচন্ড শীতের রাতের উলঙ্গতায় ।

এই খবর আমাদেরকে জানান ভাস্কর চৌধুরী , সেই নারীর নৃশংস হত্যাকান্ডের বিচারের জন্য ঐক্যবদ্ধ হতে আর শিশুটিকে বাঁচিয়ে রাখতে আবেদন জানান মানবী , আর ব্লগার লালদরজা আমাদেরকে দোহাই দিয়ে বলেন – আল্লাহর দোহাই এই বাচ্চাটাকে আমাদের বাঁচাতে হবে
আমি লিংকগুলো পড়ে ঝিম মেরে পড়ে আছি । এতো অসহায় লাগছে যে কী লিখছি নিজেও বুঝতে পারছি না ।

—————————————————
সময় কথাবার্তা বলার নয় , সময় হচ্ছে একশনের ।
ঘটনার এখানে তিনটি ভাগ :

১. শিশুটির চিকিৎসার ব্যবস্থা করা
২. হত্যাকান্ডের বিচার নিশ্চিত করা ।
৩. শিশুটির অনাগত ভবিষ্যতকে সুরক্ষিত করতে যথাসাধ্য চেষ্টা করা ।


প্রায়োরিটি এটাই । ভাস্করের সাথে এই মাত্র কথা হয়েছে আমার ।
আগামীকাল বিস্তারিত জানতে পারব আমরা ।

উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশুটিকে বড় শহরে নিয়ে আসা প্রয়োজন । যুক্তিযুক্ত হচ্ছে সিলেটে নিয়ে আসা । যদি সম্ভব হয় শিশুটিকে সিলেট বিভাগীয় সদরে নিয়ে আসা , তাহলে তাঁর চিকিৎসার যাবতীয় বন্দোবস্ত করতে আমি চেষ্টা করব ।
শিশুটিকে সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করতে , অথবা প্রয়োজনে কোন প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা করতে সিলেটে আমার বন্ধুরা কাজ করবে । চিকিৎসা ব্যয় সম্পর্কে ধারনা করতে পারছি না , তবে সেটি যদি বহনযোগ্য ব্যায়ের মধ্যে হয় , তাহলে তারও পুরো ব্যবস্থা করা যাবে । আর যদি খুবই বেশি হয় যেটি একক উদ্যোগে বহন সম্ভব নয় , তাহলেও আমরা সবাই সম্মিলিত চেষ্টা করে দেখতে পারি ।

শ্রীমঙ্গলের ব্লগার বন্ধুদের কাছে আবেদন জানাচ্ছি , তারা যদি কোনভাবে এদেরকে সিলেটে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করতে পারেন , তাহলে অবশ্যই যেন আমাকে জানান । ( ভাস্করের কাছে আমার ফোন নাম্বার আছে ) শিশু এবং তার মাতৃপরিবারের সদস্যদেরকে সিলেটে আসার যাবতীয় ব্যয় আমি ভাস্করের কাছে পাঠানোর ব্যবস্থা করব ।

২. হত্যাকান্ডের বিচারের ব্যবস্থা করা :
ব্লগে বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ সাংবাদিক বন্ধু আছেন । এই উদ্যোগে আপনাদের জোরালো সমর্থন কামনা করছি । আপনারা যদি সাহায্য করেন , তাহলে ফলোআপের মাধ্যমে নিশ্চয়ই বিচার নিশ্চিত করা যাবে । কোন আইনজীবি এনজিওকে কি সংশ্লিষ্ঠ করা সম্ভব , একটু চেষ্টা করে জানাবেন প্লিজ ।

শিশুটির ভবিষ্যত নিশ্চিত করা :
আমি একজন সমাজকল্যান কর্মকর্তার সাথে ফোনে কথা বললাম । এতো ছোট বাচ্চাকে সরকারী শিশু সদনে নেয়ার ব্যবস্থা নেই । সম্ভবত: ৫ বছর বয়েস হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে ।

সেক্ষেত্রে কী করা যাবে বুঝতে পারছি না । শিশুটিকে দত্তক দেবে না তার পরিবার , কারন বাবা জীবিত আছে , উভয়পক্ষের পরিবার জীবিত । আমরা কি এই শিশুর স্পনসর হতে পারি না ?
ধরুন প্রত্যেকে একটা টোকেন মানি দিলাম । প্রতি মাসে শিশুটির জন্য একহাজার টাকা খরচ ধরলে , বছরে বারো হাজার টাকা ; পাঁচ বছরে মাত্র ষাট হাজার টাকা ।
যাদের সাধ্য একটু বেশি আমরা ধরুন দুইমাস বা তিন মাসের স্পনসর হলাম প্রত্যেকে । অথবা আরেকটু বেশি যাদের সাধ্য তারা ৬ হাজার টাকা দিয়ে ৬ মাসের স্পনসর হলাম ।

যাদের সাধ্য একটু কম , তারা দুইজন মিলে এক মাসের স্পনসর হলাম । অথবা পাঁচজন মিলে একহাজার টাকা দিলাম , একমাসের স্পনসর হিসেবে ।
ভেবে দেখতে পারেন সবাই ।

November 10, 2008 - Posted by | Bangladesh, News | , , ,

No comments yet.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: